ত্রিপুরা ফোকাস

বিনোদন

প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ, আইনি প্যাঁচে প্রকাশ রাজ

প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করায় বিপাকে অভিনেতা প্রকাশ রাজ। ৫২ বছরের অভিনেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হল। ৭ অক্টোবর লখনৌয়ের আদালতে মামলার শুনানি। প্রধানমন্ত্রীকে বড় অভিনেতা বলে কটাক্ষ করেছিলেন দাবাং টু-এর 'ভিলেন'। কানাড়া সংবাদিক গৌরী লঙ্কেশের খুনের প্রসঙ্গ তুলে প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করেছিলেন প্রকাশ রাজ। রবিবার তিনি ডিওয়াইএফআই-এর একটি অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, "লঙ্কেশের মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‌যারা আনন্দ করেছে, তাদের ফলো করেন প্রধানমন্ত্রী। এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক।"  প্রধানমন্ত্রীকে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেছিলেন, "আমার চেয়েও বড় অভিনেতা প্রধানমন্ত্রী। পাঁচটি জাতীয় পুরস্কারই তাঁকে দিয়ে দেব।" এমনকি ‌যোগী আদিত্যনাথকেও নিশানা করেছিলেন প্রকাশ রাজ।

আমার উপরে নজর ছিল বাবার, বিস্ফোরক দাবি রাখি সবন্তের

রাম রহিমের জেল হওয়ার পরেই এই ডেরা কেলেঙ্কারি নিয়ে সিনেমা তৈরি শুরু হয়। ‘আব হোগা ইনসাফ’ নামের ছবিতে রাম রহিমের চরিত্রে অভিনয় করছেন অভিনেতা সঞ্জয় নেগি এবং হানিপ্রীতের চরিত্রে অভিনেত্রী রাখি সাবন্ত। গল্প ছিল, হানিপ্রীতকে খতম করে সব প্রমাণ লোপাট করবেন রাম রহিম। কিন্তু মঙ্গলবার হানিপ্রীত আত্মসমর্পণ করায় বদলে যাচ্ছে ছবির কাহিনি। রাখি একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, ‘‘ছবির কাহিনিতে সত্যতা বজায় রাখা হবে। তাই গল্পেও বদল আসছে।’’ আর সেই সত্যতা বজায় রাখতে ছবিতে সানি লিওনে আর রাখি সবন্তও থাকছেন চরিত্র হিসেবে। এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়েই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন অভিনেত্রী রাখি। তিনি বলেন, ‘‘সত্যি করেই বাবার নজর ছিল আমার উপরে। কিন্তু হানিপ্রীত সব সময়ে মাঝে এসে বাবাকে সামলেছে। ও বলত, তুমি বাকি মেয়েদের সঙ্গে যা খুশি করো কিন্তু রাখির সঙ্গে নয়। কারণ, সেটা হলে বড় গোলমাল হয়ে যাবে। রাখির সঙ্গে কিছু করলে বড় ঝামেলা পোহাতে হবে। আমরা এক সঙ্গে থেকেছি, খেয়েছি, কত বার দেখা হয়েছে। একবার একটা অনুষ্ঠানে রাম রহিম আর হানিপ্রীতের সঙ্গে হৃতিক রোশনের আলাপ করিয়ে দিয়েছিলাম।’’ এখানেই থামেননি রাখি। তাঁর দাবি, তিনি কখনও বাবাকে ভগবান মানেননি তবে শ্রদ্ধা ছিল। রাখি এ দিন আরও একটি কেলেঙ্কারি ফাঁস করেন। তিনি বলেন, ‘‘বাবা আমাকে বলেছিলেন, ভাল ভাল মডেল নিয়ে এসো যাতে তাদের সিনেমায় কাজ করাতে পারি। আমি একটি মডেলকে পাঠিয়েছিলাম। তার সঙ্গে বাবা মারাত্মক নোংরা ব্যবহার করেন।’’ হানিপ্রীত আত্মসমর্পণ করলেও তাঁকে নির্দোষ মানতে রাজি নন রাখি সবন্ত। তিনি প্রশ্ন তোলেন, যে সব মেয়েদের সর্বনাশ করেছেন বাবা রাম রহিম তাঁদের কেন রক্ষা করেনি হানিপ্রীত?

পুজোর দিনগুলোয় অনিয়ম কিছু হবেই, নিয়মগুলি মেনে চলুন

পুজোর দিনগুলোয় অনিয়ম হবেই। রাত জেগে ঠাকুর দেখা, ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা, ভিড়ের গুঁতো সামলানো—এ সব লেগেই থাকে। দু’চারদিনের এই অনিয়মের ঠেলা সামলাতে হয় পুজোর পরে। দশমী বা একাদশীর দিন ঘুম ভাঙার পরেও ক্লান্তি কাটতে চায় না। সারাদিন ঘুম ঘুম ভাব। এর সঙ্গে হজমের সমস্যা বা হাতে-পায়ে ব্যথা হওয়াও অস্বাভাবিক নয়। এমন অবস্থা যাতে না হয়, তাই পুজোর দিনগুলোয় মেনে চলুন তিনটি নিয়ম।

খাওয়া-দাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক হোন: অত্যাধিক তেল–চর্বিযুক্ত খাবার খেলে বা অসময়ে ভরপেট খাওয়ার ফলে পেটে সমস্যা হতে পারে। এর জেরে শরীর খারাপ লাগা বা একটু হাঁটা চলার পরেই ক্লান্ত হয়ে পড়াও অস্বাভাবিক নয়। তাই পুজোর দিনগুলোয় খাওয়া-দাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন। একসঙ্গে বেশি পরিমাণে না খাওয়াই ভাল। আর গভীর রাত পর্যন্ত ঘোরাঘুরি করলেও চেষ্টা করুন ১২ টার মধ্যেই রাতের খাবার খেয়ে নিতে। সম্ভব হলে ফুটপাথের খাবার এড়িয়ে চলুন।

Read more...

'‍পদ্মাবতী'‍র পোস্টার পোড়াল করনি সেনা

ফের রাজপুত করনি সেনার বিক্ষোভের মুখে সঞ্জয় লীলা বনশালির '‍পদ্মাবতী'‍। রাজস্থানের জয়পুরে পোড়ানো হল পদ্মাবতীর পোস্টার। করনি সেনার দাবি সিনেমা মুক্তির আগে অবশ্যই তাঁদেরকে পুরো সিনেমা দেখাতে হবে, নচেৎ রাজস্থানে সিনেমা মুক্তি পেতে দেওয়া হবে না। করণি সেনার জয়পুর জেলার সভাপতি নারায়ণ দিবরালার দাবি, '‍'‍সিনেমা মুক্তির আগে সেটি তাঁদেরকে দেখানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালি। অথচ এখনও প‌র্যন্ত সিনেমাটা তাঁদের দেখানো হল না। এমনকি ফিল্মের পোস্টারও দেখানো হয়নি।'‍'‍ নারায়ণ দিবরালা আরও বলেন, '‍'‍‌যতক্ষণ না প‌র্যন্ত আমরা নিশ্চিত হচ্ছি ‌যে, সিনেমাটিতে ইতিহাস বিকৃত করা হয়নি, বা রাজপুত বা হিন্দু ভাবাবেগে আঘাত করা হয়নি ততক্ষণ প‌র্যন্ত সিনেমাটি মুক্তি পেতে দেওয়া হবে না। শেষবার সঞ্জয়লীলা বনশালি চড় খেয়েছিলেন, এবার তাঁদের কথা না রাখা হলে বিষয়টি আরও খারাপ হবে।'‍'‍ প্রসঙ্গত, ১ ডিসেম্বর মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে দীপিকা-রণবীর অভিনীত '‍পদ্মাবতী'র। এর আগে '‍পদ্মাবতী'র শ্যুটিং চলাকালীনই করনি সেনা দাবি করে সিনেমাতে রানি পদ্মিনী ও আলাউদ্দিন খিলজির ‌যে প্রেম দেখানোর কথা বলা হচ্ছে তা ইতিহাস বিরুদ্ধ। রাজস্থানে সিনেমার সেটে ভাঙচুরও চালায় রাজপুত করনি সেনার লোকজন।

নির্বাক

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.