ত্রিপুরা ফোকাস

খেলা

ঢাকায় আজ ভারত-পাকিস্তান মহারণ

আজ ঢাকায় মহারণ। এশিয়া কাপ হকিতে রবিবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে ভারত। ইতিমধ্যেই পরপর ২টি ম্যাচে জিতেছে ভারত। জাপান ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মোট ১২টি গোল করেছে ভারতীয় হকি দল। ফলে ভারতীয় দলের মনোবল এখন তুঙ্গে। এ বছর ভারত-পাকিস্তানের শেষ সাক্ষাত হয়েছে লন্ডনে হকি ওয়ার্ল্ড লিগের সেমি ফাইনালে। সেই খেলাটাই ঢাকায় ফের খেলতে চাইছে ভারত। অধিনায়ক মনপ্রীত সিং সংবাদ মাধ্যমে জানিয়েছেন, লন্ডনে ‌যা হয়েছিল তা এখনও ইতিহাস। সেই ধরনের পারফর্ম করতে গেলে আমাদের খেলায় আরও মনো‌যোগ দিতে হবে। উল্লেখ্য, লন্ডনে ওয়ার্ল্ড হকি লিগে পরপর দুটি ম্যাচে ভারতের কাছে হেরেছিল পাকিস্তান। এবার এশিয়া কাপ হকিতে সুপার ৪-এ ‌যেতে গেলে আগামিকাল ভারতের বিরুদ্ধে জিততেই হবে পাকিস্তানকে। ফলে বেশে চাপেই রয়েছে পাক হকি টিম।দলের ক্ষমতা নিয়ে বলতে গিয়ে পাক অধিনায়ক মহম্মদ ইরফানের দাবি অন্যরকম। তাঁর মতে লন্ডনের দলের সঙ্গে বর্তমানে দলের ফারাক অনেক। তাঁর কথায়, লন্ডনে পরপর দুটি ম্যাচে আমরা হেরেছিলাম। কিন্তু বর্তমান পাক দল আগের থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী। বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ প্লেয়ার দলে ফিরেছে। আশাকরছি পাকিস্তান ভালোই খেলবে।

‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে হারের পিছনে রয়েছে দুই ভারতীয়’

টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি টোয়েন্টি-তে ভারত এখন কথা বলছে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে এই ভারতকেই কিন্তু পাকিস্তান মাটি ধরিয়ে দিয়েছিল। চির-প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের কাছে ১৮০ রানের হারের ক্ষত এখনও দগদগে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ভারতই ফেভারিট ছিল। পাকিস্তানের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার নেপথ্যে ছিলেন দুই প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার। এক জন জাতীয় দলের হেড স্যার রবি শাস্ত্রী এবং অন্য জন সুনীল গাওস্কর। এই তথ্য ফাঁস করেছেন পাক দলের ম্যানেজারের দায়িত্বে থাকা তালাত আলি। গ্রুপ পর্বেও মুখোমুখি হয়েছিল ভারত ও পাকিস্তান। সেখানে বিরাটদের কাছে হারতে হয়েছিল পাকিস্তানকে। ফাইনালে উল্টে যায় চিত্রনাট্য। তালাত আলির মতে, ফাইনালের আগে সুনীল গাওস্কর এবং রবি শাস্ত্রী আগে থেকেই বলে দিয়েছিলেন, ভারতই ফেভারিট। আর এটাই পাক ক্রিকেটারদের উদ্বুদ্ধ করে।

Read more...

ফুটবল বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রথমবার ভারত, মণিপুর ফুটবলে সুর্যোদয়

মণিপুর ফুটবলে সুর্যোদয় হল! অনূর্ধ্ব ১৭ ভারতীয় ফুটবল দলে সুযোগ পেল আটজন মণিপুরী ফুটবলার। সেই নিয়ে মণিপুরের সঙ্গে ভারতীয় ফুটবলমহলও উল্লসিত। কিন্তু একইসঙ্গে যে নিঃশব্দে সুর্যাস্ত হয়ে গেল ভারতের আর এক রাজ্যের ফুটবলে! বুধবার গোয়া থেকে ফোনে কথা বলার সময় এতটুকু দ্বিধা নেই আর্মান্দো কোলাসোর। বলে দিলেন, ‘‘আমার জীবনে এরকম দুঃখের দিন আসেনি!’’ হয়তো ঠিকই বললেন। আগামী শুক্রবার থেকে ভারতে শুরু হতে চলেছে অনূর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ। ২১জনের ভারতীয় ফুটবল দলে গোয়ার কোনও প্রতিনিধিত্ব নেই! ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট নিয়ে যে রাজ্য প্রায় গত তিন দশক ধরে অবিরাম কাজ করে চলছে। আট এবং নয়ের দশক থেকে শুরু করে পরবর্তী প্রায় ৩০ বছর ধরে যে গোয়া’কে বলা হতো ভারতীয় ফুটবলের ইয়ুথ ডেভেলপমেন্টের আতুঁরঘর!  প্রাক্তন জাতীয় কোচ জানালেন, চার্চিল ব্রাদার্সে সাত বছর এবং ডেম্পোতে তাঁর ১৩ বছরের কোচিং জীবনে কত জুনিয়র ফুটবলার পরবর্তীকালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন তার কোনও ইয়ত্তা নেই।

Read more...

উৎসব মিটতেই প্রস্তুতিতে নেমে পড়ল মোহন-বেঙ্গল

উৎসবের রেশ কাটিয়ে আই লিগের প্রস্তুতিতে নেমে পড়ল ইস্টবেঙ্গল। মঙ্গলবার সকাল থেকে হাওড়া স্টেডিয়ামে অনুশীলন শুরু করল খালিদ ব্রিগেড। টানা আটবার ঘরোয়া লিগ চ্যাম্পিয়ন লালহলুদের পাখির চোখ এখন আই লিগে। নয়া বিদেশি চার্লস প্রথমদিন পুরোদমে দলের সঙ্গে অনুশীলন করেন। লালহলুদে ট্রায়াল দিতে শুরু করেছেন কামোর ভাই বাজু আর্মান। আগামী এক সপ্তাহ এই মিডফিল্ডারকে দেখবেন খালিদ। তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আই লিগের আগে চলতি মাসে বেশ কয়েকটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারে ইস্টবেঙ্গল। 

অন্যদিকে, ঘরোয়া লিগ হারানোর হতাশা ভুলে সিকিম গোল্ড কাপের প্রস্তুতি শুরু করে দিল মোহনবাগান। মঙ্গলবার দুপুরে দল নিয়ে বারাসত স্টেডিয়ামে নেমে পড়লেন শঙ্করলাল চক্রবর্তী। বাগানের অনুশীলনে প্রথমবার নামলেন নয়া দুই বিদেশি দিয়েগো ও ইউতা কিনাওয়াকি। একই সঙ্গে মহমেডান স্পোর্টিং থেকে আসা পাঁচজন ফুটবলারও এদিন প্রথমবার নামলেন সবুজমেরুনের অনুশীলনে। সিকিমে ফিল্ড টার্ফে ম্যাচ খেলতে হওয়ায় আপাতত বারাসতেই অনুশীলন করবেন ক্রোমারা। ছই অক্টোবার একটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাগান। আটই অক্টোবর সিকিম যাবে শঙ্করলাল ব্রিগেড। 

তিন প্রধানের ফুটবলাররা একই মঞ্চে, বেনজির সংহতির বার্তা দুর্গাপুজোয়

কলকাতা লিগ শেষ। মাঠের মধ্যের শত্রুতাও উধাও। মহারণ মিটতেই তিন প্রধানের তারকা ফুটবলাররা বেড়িয়ে পড়লেন শহরের পুজো মণ্ডপগুলিতে। বেলঘরিয়া, রামতনু বোস লেনে আগেই দেখা গিয়েছিল শিল্টন, কামো, ঝুলন গোস্বামী, আজাহারউদ্দিন, শঙ্করলালদের।এবার মহাষষ্ঠীর দিন তিন প্রধানের তারকাদের পাওয়া গেল শহরতলিতে। সাঁতরাগাছির জগাছা সবুজ পত্রের পুজো মণ্ডপে পাওয়া গেল কিংসলে, কার্লাইল মিচেল, প্লাজা, ক্রোমা, সস্ত্রীক ডিপাণ্ডা ডিকাকে। কে বলবে কিছুদিন আগেই মাঠে একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রাণপণে লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন মিচেল, প্লাজা, ডিকারা। পুজোর মাহাত্ম্য তো এখানেই। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলেই মিশে যান শারদীয়ার আবহে। মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল হোক বা মহামেডান— মা দুর্গা মিলিয়ে দেন প্রত্যেককেই।

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.