ত্রিপুরা ফোকাস

No result ..

আন্তর্জাতিক

সু চির কানাডার সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বাতিলের দাবি

কানাডায় মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বাতিলের দাবি উঠেছে। রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে পদক্ষেপ না নেওয়ায় রাজনীতিবিদ, মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী ছাড়াও বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয় নাগরিকরা বিভিন্ন বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর কাছে এ দাবি তুলে ধরছেন। ইন্টারনেটে এ বিষয়ে একটি পিটিশন ক্যাম্পেইন চলছে, যেখানে পাঁচ দিনে প্রায় নয় হাজার মানুষ সই করেছেন। শনিবার টরন্টোতে কয়েকটি সংগঠন আয়োজিত এমন এক সমাবেশে অংশ নেন খোদ কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড। রাখাইনে চলমান সেনা অভিযান সম্পর্কে ফ্রিল্যান্ড বলেন, মিয়ানমার সরকারের অভিযান মূলত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নির্মূল করার উদ্দেশ্যেই পরিচালিত হচ্ছে। কানাডার সরকার এ বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছে। মিয়ানমারের নেত্রী সু চিকে ২০১২ সালে কানাডার সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। কানাডার ১৫০ বছরের ইতিহাসে বিশ্বের মাত্র ছয়জনকে সম্মানসূচক এ নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছে। এ ছয়জনের মধ্যে সু চিসহ চারজন আবার শান্তিতে নোবেল বিজয়ী।

ইসলামিক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলিকে কড়া বার্তা দিল ভারত

জাতিসংঘের মঞ্চে ইসলামিক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির প্রতি কড়া বার্তা দিল ভারত। কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়ে দিল, ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে তারা যেন মাথা না গলায়। ‘অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন’ গোষ্ঠীভুক্ত দেশ গুলির প্রতি ভারতের এই চূড়ান্ত বার্তা। জাতিসংঘে পাকিস্তানের কড়া সমালোচনা করে ভারতের দূত সুমিত শেঠ। ওআইসি-র সদস্য পাকিস্তান। তাতে ওআইসি সমর্থন করায় ভারতীয় দূতের স্পষ্ট বার্তা, এই বিষয়ে মতামত জানানোর কোনও অধিকার নেই ওআইসি-র। এটা একান্তই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। ভবিষ্যতে এমন কোন মন্তব্য না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওআইসি-কে। বলা হয়েছে, পাকিস্তানকে সমর্থনের জন্য ইচ্ছাকৃত ভাবে ওআইসি ভুল তথ্য পেশ করছে। জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে যে বক্তব্য পেশ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

Read more...

বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল লন্ডনের ভূগর্ভস্থ স্টেশন

প্রবল বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল লন্ডন। শুক্রবার পশ্চিম লন্ডনের পারসনস গ্রিন আন্ডারগ্রাউন্ড স্টেশনে বিস্ফোরণটি ঘটে। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, বিস্ফোরণে আহত হয়েছেন ২০ জন যাত্রী। তাঁদের মধ্যে বেশ কিছু জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাঁদের হাত-পা ঝলসে গিয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ঘটনাস্থলে পুলিস, দমকলবাহিনী। ৬টি অ্যাম্বুলেন্স ও হেলিকপ্টার করে যাত্রীদের উদ্ধার করা হচ্ছে। যাত্রীদেরই কয়েকজন সোশ্যাল মিডিয়ায় কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরাও বেশ কিছু টুইট করে জানিয়েছেন নিজেদের অভিজ্ঞতা। বিস্ফোরকটি একটি প্যাকেটের মধ্যে করে একটি কৌটোয় মেট্রো স্টেশনের এক কোণায় রেখে দেওয়া ছিল বলে প্রাথমিক সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে। কিছু সন্দেহজনক বস্তু উদ্ধার করে তা নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত কেউ বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেনি। মেট্রো স্টেশনটিকে আপাতত সিল করে দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের তরফে। আর্লস কোর্ট ও উইম্বলডনের মধ্যে মেট্রো পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  তদন্ত চলছে।

ফের ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া

এ যেন যেমন কথা, তেমন কাজ। পিয়ংইয়ং থেকে হুঁশিয়ারি ছিল, পরমাণু বোমা বিস্ফোরণ করে সমুদ্রে ডুবিয়ে দেওয়া হবে জাপানের চারটি দ্বীপকে। ঠিক তার ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই সেই কথার নমুনা দেখিয়ে দিল কিম জং উন। শুক্রবার জাপানের হোক্কাইদো দ্বীপের উপর দিয়ে ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া। জানা যাচ্ছে, স্থানীয় সময় সকাল ৬.৩০ নাগাদ পিয়ংইয়ং উত্তরে সুনান থেকে ছোড়া হয় এই ক্ষেপণাস্ত্র। এই নিয়ে শেষ তিন সপ্তাহের মধ্যে দু'বার জাপানের দিকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেন কিম। যদিও তাদের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও সরকারি  বিবৃতি পাওয়া যায়নি। দক্ষিণ কোরিয়া সেনা বাহিনীর এক উচ্চপদস্থ অফিসার জানাচ্ছেন, প্রায় ৭৭০ কিলোমিটার উপর দিয়ে এই ক্ষেপণাস্ত্রটি ৩৭০০ কিলোমিটার অতিক্রম করে আতলান্তিক মহাসাগরে গিয়ে পড়ে। যা হোক্কাইদো দ্বীপের ভীষণ কাছে বলে জানা যাচ্ছে। এই ঘটনায় জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়ে জানান, এমন ভয়ঙ্কর প্ররোচনামূলক কাজকে কখনই বরদাস্ত করা হবে না। তিনি আরও বলেন, "উত্তর কোরিয়া যদি এই পথে দীর্ঘদিন হাঁটতে থাকে, তাহলে তাদের ভবিষ্যত খুব একটা ভাল হবে না।" আমেরিকার তরফেও নিন্দা করা হয়।

পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্র ফের চালু করল উত্তর কোরিয়া

কয়েকদিন আগেই উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক বোমার চেয়ে শক্তিশালী একটি হাইড্রোজেন বোমা পরীক্ষা করেছে। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন থেকেও বিবৃতিতে বিষয়টি স্বীকার করা হয়। এ পরীক্ষার পর কয়েকদিন পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্র বন্ধ ছিল। তবে তা আবার চালু করার বিষয়টি নজরে এসেছে স্যাটেলাইট চিত্রে। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু হুমকিতে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্রসহ নানা দেশ দেশটির কর্মকাণ্ডের ওপর নজর রাখে। সম্প্রতি পারমাণবিক পরীক্ষার পর স্যাটেলাইটে তোলা ছবি বিশ্লেষণ করে মার্কিন বিশেষজ্ঞরা দেখতে পেয়েছেন, উত্তর কোরিয়া পুঙ্গি-রি নামে পারমাণবিক পরীক্ষা কেন্দ্রের যে স্থানে পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা করা হয়েছে, সেখানে আবার প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে। গত ৩ সেপ্টেম্বর এ স্থানে পারমাণবিক পরীক্ষা করা হয়। এরপর ৮ সেপ্টেম্বর থেকেই সেখানে বিশালাকৃতি কার্গো ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে। এ ঘটনা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ করছে পশ্চিমা বিশেষজ্ঞ ও সমরবিদরা। এ স্থানে উত্তর কোরিয়া আর কী করতে চায়, সে বিষয়টিও তারা বোঝার চেষ্টা করছেন। এর আগে পারমাণবিক পরীক্ষার পর গত বুধবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় উত্তর কোরিয়া রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলে এক বিবৃতিতে ঘোষণা করে যে, হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা চালাতে সক্ষম হয়েছে দেশটি।

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.