ত্রিপুরা ফোকাস

No result ..

জাতীয়

মা ঘরে এলেন

দুর্গাপুজো প্রত্যেক বাঙালির কাছে বিশেষ কয়েকটা দিন, বিশেষ মুহূর্ত। ‘মা ঘরে এলেন’ বলে একটা আলাদা অনুভূতি।যা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়।

গঙ্গা মাটি, গো-চনা, গো-মূত্র এই তিন উপাদান ছাড়া দেবী দুর্গার পুজো 'অসম্পূর্ণ', মত ধর্ম প্রজ্ঞাদের। আর এই তিন উপাদান ছাড়াও রয়েছে আরও এক উপকরণ, যা দিয়ে দেবী দুর্গার মূর্তি তৈরি হয়। গণিকালয়ের পুণ্য মাটিই হল সেই উপকরণ, যা ব্যবহার করে পটুয়ারা দেবী দুর্গার প্রতিমা গড়েন।ভগবান শিবের জটায় বাস করা গঙ্গা। আর গরু, যা হিন্দু বিশ্বাস অনুযায়ী মা রূপে পূজিতা হন। দেবী দুর্গার পুজোতে এই দুইয়ের প্রয়োজনের ব্যাখ্য হিসেবে ধর্ম প্রজ্ঞারা 'শুভ' শব্দকেই বেশিরভাগ সময় ব্যবহার করেছেন। অনেকের মতে গঙ্গা মাটি, গো-চনা এবং গো-মূত্র 'অপিবত্র' মানব দেহকে পবিত্র করে। তাই সমস্ত শুভ কাজের আগে এই তিনের ব্যবহার অবশ্যই করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। আর সেই সূত্র ধরেই দুর্গা দেবীর আরাধনাতেও ব্যবহৃত হয় গঙ্গা মাটি, গো-চনা এবং গো-মূত্র। কিন্তু দেবী প্রতিমা গড়তে কেন পটুয়ারা ব্যবহার করেন গণিকালয়ের মাটি, সে বিষয়ে নির্দিষ্ট সর্বজন গ্রাহ্য কোনও ব্যাখ্যাই এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। শোনা যায়, একজন পুরোহিত গণিকালয় থেকে মাটি সংগ্রহ করেন এবং তা গ্রহনের সময় বৈদিক মন্ত্র উচ্চারণ করে তা শুদ্ধ করেন। এরপর সেই মাটি দিয়েই নাকি তৈরি হয় দেবী প্রতিমা। 

পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি ভারতীয় সেনাপ্রধানের

নিজেদের না বদলালে ফের ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’-এর মতো হামলা চালিয়ে পাকিস্তানকে শিক্ষা দিতে পারে ভারত। এই ভাষাতেই প্রতিবেশী দেশকে সতর্ক করলেন ভারতের সেনা প্রধান বিপিন রাওয়াত। রাওয়াত বলেন, সীমান্তের ওপার থেকে সন্ত্রাসে মদত দেওয়া বন্ধ না করলে পাকিস্তানকে উচিত শিক্ষা দেওয়ার মতো প্রয়োজনীয় সামরিক সম্ভার এবং বিকল্প ভারতের হাতে রয়েছে। ঠিক যেভাবে এক বছর আগে ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ চালিয়েছিল ভারতীয় সেনা, ঠিক একই কায়দায় ভারতীয় সেনা আরও অভিযান চালাতে প্রস্তুত বলেই পাকিস্তানকে হঁশিয়ারি দিয়েছেন রাওয়াত। সীমান্ত পেরিয়ে এদেশে অনুপ্রবেশকারী জওয়ানদের যথাযথ ‘আপ্যায়ণ’ এবং ‘মাটির আড়াই ফুট নীচে পুঁতে দেওয়ার মতো’ শক্তিশালী বাহিনী এবং সামরিক অস্ত্র ভারতের হাতে রয়েছে বলেই জানিয়েছেন আত্নবিশ্বাসী সেনা প্রধান।গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বর পাক অধিকৃত কাশ্মীরে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছিল ভারত। রাওয়াতের দাবি, পাক সেনা এবং আইএসআই যৌথভাবে জঙ্গিদের সীমান্ত পেরিয়ে এদেশে অনুপ্রবেশে সাহায্য করছে। সেনা প্রধানের কথা, ‘‘আমরা তৈরি আছি। সীমান্তের ওপার থেকে জঙ্গীরা এসেই চলেছে। আর আমরা তাদের স্বাগত জানানোর জন্য বসে আছি। ওদের যথাযথ আপ্যায়ণ জানিয়ে মাটির আড়াই ফুট নীচে পাঠিয়ে দিচ্ছি।’’ রবিবারই কাশ্মীরের উরির কালগাই অঞ্চলে জঙ্গী হানার চেষ্টা ব্যর্থ করেন ভারতীয় সেনা জওয়ানরা। এই ঘটনায় সেনা জওয়ানদের হাতে চার জঙ্গীর মৃত্যু হয়। ঠিক তার পরের দিনই পাকিস্তানকে কড়া ভাষায় সতর্ক করলেন ভারতীয় সেনা প্রধান।

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.