ত্রিপুরা ফোকাস

No result ..

জাতীয়

ফের খুন সাংবাদিক, খবর সংগ্রহের 'অপরাধে' প্রাণ গেল

প্রকাশ্য রাস্তায় কুপিয়ে খুন করা হল ত্রিপুরার একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক শান্তনু ভৌমিককে। আগরতলা থেকে কিছুটা দূরে মান্দাইয়ে ঘটনাটি ঘটেছে। আদিবাসী রাজনৈতিক সংগঠন ইন্ডিজেনাস পিপলস ফ্রন্ট অফ ত্রিপুরার (আইপিএফটি) অবরোধ কর্মসূচি ছিল। অশান্তির আশঙ্কায় আগে থেকেই ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছিল পুলিস। সেখানেই পুলিসের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে আইপিএফটি সমর্থকদের। খবর সংগ্রহে সেখানে গিয়েছিলেন সাংবাদিক শান্তনু ভৌমিক। আইপিএফটি সমর্থকেরাই সাংবাদিককে রাস্তায় ফেলে মারধর করে বলে অভিযোগ। ধারালো অস্ত্র দিয়ে রাস্তায় ফেলে কোপানো হয় তাঁকে। আহত সাংবাদিককে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিত্সকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এই ঘটনার নিন্দা করেছেন ত্রিপুরা বিধানসভার উপাধ্যক্ষ পবিত্র কর। সেরাজ্যের অর্থমন্ত্রী ভানুলাল সাহা ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, "পশুর মতো আচরণ। কোনও মূল্যবোধ নেই এদের। এরা সাংবাদিকদের মেরে ফেলছে, সরকারি কর্মচারীদের তো খুন করেই। এরা রাজ্য জুড়ে দাঙ্গা লাগানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে"।

রোহিঙ্গারা দেশের নিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক, সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা কেন্দ্রের

রোহিঙ্গা শরণার্থীরা দেশের নিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক। সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে এমনটাই জানাল কেন্দ্র। ফলে এ দেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় নয় বরং তাদের মায়ানমারে ফেরত পাঠানোর পক্ষেই সওয়াল করল কেন্দ্র। কেন রোহিঙ্গারা দেশের জন্য বিপদ? কেন্দ্রের দাবি,  রোহিঙ্গাদের সঙ্গে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই ও জঙ্গি গোষ্ঠী আল কায়দার ‌যোগা‌যোগ রয়েছে, বলে দাবি গোয়েন্দাদের। পাশাপাশি, কেন্দ্র তার হলফনামায় জানিয়েছে,  জম্মু ও কাশ্মীর, হায়দরাবাদ ও দিল্লিতে কিছু রোহিঙ্গারা জঙ্গি হিসেবে সক্রিয়। এমনকী পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরার কয়েকটি গোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের ভারতে ঢোকানোর ব্যাপারে সক্রিয় বলেও জানাচ্ছে কেন্দ্র। উল্লেখ্য, রোহিঙ্গাদের পক্ষে সওয়াল করেন প্রশান্ত ভূষণ, ফলি এস নরিম্যান, কপিল সিব্বলের মতো আইনজীবীরা। তবে কেন্দ্র তার হলফনামায় আরও জানিয়েছে, গোটা বিষয়টির সঙ্গে আন্তর্জাতিক আইন ও কূটনীতি জড়িত। তাই এনিয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে আদালতের হস্তক্ষেপ কাম্য নয়।

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.