ত্রিপুরা ফোকাস

No result ..

সাংবাদিক খুনের ঘটনায় জটিল হয়ে উঠছে রাজ্য রাজনীতি, বন্ধ ইন্টারনেট পরিষেবা

সাংবাদিক শান্তনু খুনের ঘটনায় জটিল হয়ে উঠছে রাজ্য রাজনীতি। এই ঘটনায় উপজাতি রাজনৈতিক দল আইপিএফটিকে দায়ি করা হলেও, এবার খোদ আইপিএফটি এই ঘটনার সিবিআই তদন্ত দাবি করছে। এমনকি, যতক্ষন পর্যন্ত না সেই খুনের ঘটনার সিবিআই তদন্ত দেয়া হবে, ততক্ষন পর্যন্ত এডিসির সদর দপ্তর খুমূলুঙ-এ অনিদৃষ্ট কালের জন্য ধর্ণা চালিয়ে যাবার কথা ঘোষণা করেছে তারা। পুলিশ এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুই জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের ১৪ দিনের পুলিশ রিমান্ডে আনা হয়েছে। এই ঘটনায় যুক্ত মূল অপরাধীরা এখনো ধরা ছোয়ার বাইরে বলেই মনে করছেন বুদ্ধিজীবী ও বিদগ্ধ মহল। ঘটনায় জড়িত প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তার করার দাবিতে সোচ্চার সাংবাদিক সংগঠন। দিল্লীতেও এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদ সংগঠিত হয়। ঘটনার তিনদিন পরে আইপিএফটির পক্ষ থেকে এই ঘটনার তদন্তভার সিবিআইয়ের হাতে ন্যস্ত করার দাবি উঠতেই ঘটনার গতি প্রকৃতি বদলে যেতে শুরু করেছে।সাংবাদিক খুনের ঘটনায়, রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সাংবাদিক সংগঠন আইপিএফটিকে দোষী করে বিবৃতি দিলেও আইপিএফটির এই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এখন অনেকেই সন্দিহান হয়ে পরেন। এখন সকলের দাবি, সাংবাদিক শান্তনু-র খুনের ঘটনার প্রকৃত রহস্য উন্মোচিত হোক। এ নিয়ে রাজ্য সরকার এই ইস্যুতে কি অবস্থান নেয় এখন সেদিকেই তাকিয়ে আছেন সকলে।

এদিকে ২০ সেপ্টেম্বর রাত থেকে রাজ্যের সর্বত্র ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে রাখা হয়। ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক করার প্রশ্নে দপ্তরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি রাকেশ সারোয়াল একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে ইন্টারনেট পরিষেবা সম্পূর্ণ বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করেন। এরফলে সংবাদমাধ্যম সহ ব্যাঙ্কিং এবং সমস্ত বেসরকারি পরিষেবা মুখ তুবড়ে পড়েছে।  গত কয়েকদিন ধরে এই অচলাবস্থা চলছে সর্বত্র। যদিও বিরোধী বিজেপি অভিযোগ করে বলেছে, সাংবাদিক শান্তনুর মৃত্যুর সংবাদ যাতে রাজ্যের বাইরের মানুষ না জানতে পারে তারজন্য এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। রাজ্য সরকার সোশ্যাল সাইটগুলি বন্ধ রাখতে চাইছে। কিন্তু প্রশাসনের কিছু অযোগ্য অফিসার বিষয়টিকে জঠিল করে তুলেছে নিজেদের অজ্ঞতার কারণে।  নিদৃষ্ট ভাবে সোশ্যাল সাইট গুলি বন্ধ না করে গোটা ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেয়ার নোটিশ জারি করা হয়েছে। যা নিয়ে সোচ্চার হচ্ছে বিভিন্ন মহল। রবিবার পর্যন্ত এই পরিষেবা বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে। তবে প্রয়োজনে এই নির্দেশ আরো বেশি সময়ের জন্য বাড়তে পারে। যদিও ব্রডব্যান্ড পরিষেবাকে এই নির্দেশের বাইরে রাখা হয়েছে।

 

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.