ত্রিপুরা ফোকাস

শারদ উৎসবে মেতে উঠেছে আগরতলা

উৎসবমুখর আগরতলায় বিগ বাজেটের মণ্ডপে ঠাকুর দেখতে ভিড়। বুধবার সন্ধে থেকে এ ছবিই দেখা গেল আগরতলার বহু বনেদি ক্লাবে। রাস্তায় রঙের আলোর ঝলকানি, মাইকে গানও ভেসে আসছে। এদিন বহু পুজোমণ্ডপের উদ্বোধন হয়। অনেক জায়গাতেই পুজো উদ্যোক্তারা দেবীর বোধনের দু’‌দিন আগেই মণ্ডপ উন্মুক্ত করে দিয়েছেন দর্শনার্থীদের জন্য। আবার কিছু জায়গায় মণ্ডপ উন্মুক্ত না হলেও মণ্ডপে ভিড় জমান দর্শনার্থীরা। একদিকে মণ্ডপের কাজ চলছে, অন্যদিকে একই সঙ্গে চলে ঠাকুর দেখা।

 

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, এবার পুজোতে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বৃষ্টির আশঙ্কা ও ভিড় এড়াতেই ঠাকুর দেখার দিন পাল্টে নিল আগরতলা। যা একসময় ষষ্ঠীতেই ভিড় জমত। অন্যদিকে, বরাবরের মতো এবারও সপ্তমী পুজোর দিন থেকে দশমী পর্যন্ত শহরের মধ্যে যান–চলাচলে ট্রাফিকের নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে। সন্ধে ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত দ্বিচক্র যান–সহ সমস্ত রকমের গাড়ি চলাচলে এই নিষেধাজ্ঞা জারির কথা ইতিমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই একদিকে বৃষ্টির ভ্রুকুটি এবং অন্যদিকে ট্রাফিকের ঝামেলা এড়াতেই চতুর্থীর সন্ধে থেকে বেরিয়ে পড়েছেন দর্শনার্থীরা।

নেতাজি প্লে সেন্টারে এবার পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের আদলে মণ্ডপ গড়া হয়েছে। মণ্ডপ দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। রাজ্যের অলিম্পিয়ান জিমন্যাস্ট দীপা কর্মকার মণ্ডপের উদ্বোধন করেন। এখানে পুরোদমে উৎসবের মেজাজ লক্ষ্য করা গেছে। ছাত্রবন্ধু ক্লাবে এবার ভেলোরের লক্ষ্মীনারায়ণ স্বর্ণমন্দিরের আদলে মণ্ডপ তৈরি করা হয়েছে। এই পুজোও চতুর্থী থেকেই দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। এরও উদ্বোধন করেন জিমন্যাস্ট দীপা কর্মকার। সেন্ট্রাল রোড যুব সংস্থায় এবার বাঁশ–বেতের বিশাল দুর্গা। কলকাতার দেশপ্রিয় পার্কের গত বছরের প্রতিমার আদলে এবার মণ্ডপ। এখানে মণ্ডপের উদ্বোধন করেন আগরতলার রামকৃষ্ণ মিশনের সম্পাদক স্বামী হিতকামানন্দ মহারাজ। দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন ক্লাবে এবার শ্বেত পাথরের দুর্গা। রয়েছে বিশাল রাবণ। ‘‌যেমন খুশি সাজো’‌ থিমে পুজো। এই পুজোও এদিন থেকেই দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছেন ক্লাব কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও শহরের অন্য বড় পুজোগুলোতেও দর্শনার্থীদের ভিড় নজরে এসেছে। শান্তিপাড়ার ঐকতান যুব সংস্থা, রামঠাকুর সঙ্ঘ, আস্তাবলের পোলস্টার ক্লাব, শান্তিকামী সঙ্ঘ, লালবাহাদুর ক্লাব, জয়নগর যুবসমাজ প্রভৃতি ক্লাবেই দর্শনার্থীদের কমবেশি ভিড় নজরে এসেছে। পঞ্চমী ও ষষ্ঠীর সন্ধেয় বাকি ক্লাবগুলোর পুজো মণ্ডপ উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। তার ওপর এবার রেল চালু থাকায় মফস্‌সলের মানুষও এবার পুজোতে গণহারে রাজধানীমুখী হবেন, তাও এখন থেকেই বোঝা যাচ্ছে।

ভিডিও গ্যালারী

  ত্রিপুরা ফোকাস  । © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ত্রিপুরা ফোকাস ২০১০ - ২০১৭

সম্পাদক : শঙ্খ সেনগুপ্ত । প্রকাশক : রুমা সেনগুপ্ত

ক্যান্টনমেন্ট রোড, পশ্চিম ভাটি অভয়নগর, আগরতলা- ৭৯৯০০১, ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া ।
ফোন: ০৩৮১-২৩২-৩৫৬৮ / ৯৪৩৬৯৯৩৫৬৮, ৯৪৩৬৫৮৩৯৭১ । ই-মেইল : This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.